আন্দোলন করে বিভাগের স্বীকৃতি আদায় করতে হবে কেন?

ইতিহাস বিভাগের স্বীকৃতির দাবিতে আন্দোলন
Image : Facebook

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এ ইতিহাস বিভাগের তিনটি বর্ষ পার হয়ে গেলেও মেলেনি ইউজিসির অনুমোদন। তাহলে আন্দোলন করে বিভাগের স্বীকৃতি আদায় করতে হবে?

বশেমুরবিপ্রবি বাংলাদেশের একটা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। নানা অর্জনের মধ্য নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যালয় অনেক সুনাম কুড়িয়েছিল অতীতে।

কিন্তু এখানে নানা কর্মকান্ডের জন্য দুর্নামও কম সহ্য করতে হয়নি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের। যার অন্যতম কারিগর ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক ভিসি খন্দকার নাসিরউদ্দিন।

২০১১ সালে ৫৫ একরের উপর ৫টি বিভাগ নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা করলেও এখন বিভাগ সংখ্যা ৩৪ এবং ছাত্রছাত্রী প্রায় ১২০০০ র মত।

এই ক্রমবর্ধমান বিভাগ ও ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা দেখলেই কিছুটা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা আঁচ করা যায়।

এখানে অন্যান্য বিভাগ গুলোর অনুমোদন মিললেও মেলেনি ইতিহাস বিভাগের অনুমোদন। অথচ বিভাগটি পার করে যাচ্ছে তিনটি বছর।

আবার সম্প্রতি বিভাগটি কে পরবর্তী বছর থেকে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে ইউজিসি। যার কারণে সংকটে পড়েছে ঐ বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

একটা সরকারি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা অনেক কষ্ট করে তাদের মেধা যাচাই করে ভর্তি হয় একটা স্বপ্ন নিয়ে।

এখন তাদের যদি যোগ্যতা যাচাইয়ের পরও তাদের আন্দোলন করে বিভাগের স্বীকৃতি আদায় করতে হয়, তবে বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক।

সবচেয়ে ভয়ংকর কথা হচ্ছে, ইউজিসির অনুমোদন ছাড়া একটি বিভাগ চলছে অনেক নিঃশব্দে।

একটা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের যখন এই অবস্থা দেশের কত নামী-বেনামী প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা কি হতে পারে!

দেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে বিভাগের সংখ্যা। কিন্তু আমরা কি শিক্ষার মান বাড়াতে পারছি?

যদি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সঠিক পর্যবেক্ষণে না আনা যায়, তবে বশেমুরবিপ্রবির ইতিহাস বিভাগের স্বীকৃতির আন্দোলন কিংবা খন্দকার নাসিরউদ্দিন অধ্যায় আমাদের দেখতে হবে।

আশা করি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগ শীঘ্রই তাদের অনুমোদন পাবে। তাদের আন্দোলন সফল হবে ইনশাআল্লাহ।

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here