বিল গেটস এর অনুপ্ররণা বাংলাদেশের যে মানিকজোড় বাবা মেয়ে

বিল গেটস, পৃথিবীর সব থেকে ধনী ব্যক্তি এবং মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা।

বাংলাদেশের বাবা মেয়ের কাজের প্রসংসা করে তিনি তার ব্লগ গেটস নোটে একটা ব্লগ লিখেছেন।

আজ আমরা জানার চেষ্টা করবো, কারা এই মানিকজোড় বাবা মেয়ে? আর কেনই বা বিল গেটস অনুপ্রাণিত হয়েছেন?

এই বাবা হচ্ছেন ঢাকা শিশু হাসপাতালের অনুজীব বিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. সমীর সাহা এবং মেয়ে হচ্ছেন তার মেয়ে সেঁজুতি সাহা।

এই বাবা মেয়ে কাজ করছেন কিভাবে শিশু মৃত্যুর হার কমানো যায়। এজন্য গড়ে তুলেছেন Child Health Research Foundation(CHRF).

ড. সমীর সাহা যখন রাতের খাবার খেতেন, তখন সারা দিনের কাজকর্ম নিয়ে আলোচনা করতেন। সেই থেকে তার মেয়ে সেঁজুতির অনুজীব বিজ্ঞাবে পড়ার আগ্রহ তৈরি হয়।

শিশুদের মুলত মৃত্যু হয় নিউমোনিয়া ও মেনেঞ্জাইতিসের মত রোগের কারণে। যেটি উন্নত বিশ্বে সহজলোভ্য হলেও আমাদের মত দেশে সহজলোভ্য না।

তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে নবজাতক ও শিশু মৃত্যুর হার বৃদ্ধি পায় রহস্যজনক রোগের কারণে। এসব রোগকে সঠিকভাবে শনাক্ত করা হয়ে উঠছিল না।

এমন সংকটে আশার আলো নিয়ে এলেন বাংলাদেশের মেয়ে অনুজীববিজ্ঞানী সেঁজুতি সাহা। ২০১৭ সালে বাংলাদেশে শিশুদের মধ্যে মেনিনজাইটিসের সংক্রমণ বেড়ে যায়।

ঠিক সেই সংকটে, সেঁজুতি উদ্ভাবন করেন যে, চিকুনগুনিয়ার বিস্তারের জন্যই মেনিনিজাইটিসের প্রকোপ বৃদ্ধি পায় এবং ভাইরাস ছড়ায় মশার মাধ্যমে।

বিস্তারিত জানার জন্য তিনি তার গবেষণার নমুনা যুক্তরাষ্ট্রে পাঠান। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই তৃতীয় বিশ্বের দরিদ্র দেশসমূহের জন্য রোগ নির্নয়ের জন্য সল্পমূল্যের উপকরণের তৈরি করেন অনুজীববিজ্ঞানি সেঁজুতি সাহা।

এই গবেষণা তৃতীয় বিশ্বের আমাদের মত দরিদ্র দেশ গুলোর জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে।

কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে, বিল গেটস অনুপ্রাণিত হলেও আমাদের এইসব গবেষণাতে মন নেই। সিস্টেমিক দূর্বলতা, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারনে মেধা থাকা স্বত্ত্বেও আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি।

ড. সমীর ও সেঁজুতি
গেটস নোটে ড. সমীর ও সেঁজুতি

আরও পড়ুন

অরুণ কুমার বসাক: এক নিবেদিত প্রাণ ছাত্র বান্ধব শিক্ষক ও বিজ্ঞানী

কিছু বাঙালি গণিতবিদঃ যাদের অবদানে গণিত আজ সম্মৃদ্ধ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here